31 C
Dhaka
Thursday, April 15, 2021

‘মিথ্যা’ মামলায় কারাভোগ অন্তঃসত্ত্বা আদুরীর, বেঁচে নেই গর্ভের সন্তানও!

- Advertisement -
- Advertisement -

আদালত চত্বরে আইনজীবীদের হাতে হেনস্তার শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন তানজিমা তাসকিন আদুরী নামে যুদ্ধাহত এক মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। গত ৮ মে দেশের সর্বোচ্চ আদালতে এ ঘটনা ঘটে। এখানেই শেষ নয়, ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা আদূরীকে ‘টাউট’ আখ্যা দিয়ে মামলা করে শাহবাগ থানা পুলিশের হাতে তুলে দেয়া হয়। ‘মিথ্যা’ এ মামলায় ২১ দিন জেল খেটে বের হয়েছেন ঠিকই, কিন্তু আদুরীর গর্ভের সন্তান আর বেঁচে নেই।

ভুক্তভোগী আদুরীর বাবার নাম আব্দুল জব্বার মন্ডল। বাড়ি রাজশাহীর জেলার বাগমারায়। বেসরকারি বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি থেকে আইন বিষয়ে এলএলবি ও এলএলএম করেছেন তিনি।
ভুক্তভোগীর অভিযোগ, আপিল বিভাগে বিচারাধীন থাকা তার বাবার একটি জমিজমা বিরোধের মামলার জন্য সুপ্রিম কোর্টে গিয়েছিলেন তিনি। এরপরই ওই ঘটনা ঘটে।
তিনি বলেন, বাবার আইনজীবী অ্যাডভোকেট হাই স্যারের সঙ্গে দেখা করার জন্য সুপ্রিম কোর্টের সোনালী ব্যাংকের সামনে দাঁড়িয়ে ছিলাম। হঠাৎ দুইজন নারী আইনজীবী এসে আমাকে ‘টাউট’ আখ্যা দিয়ে জোরপূর্বক ধরে নিয়ে যায়। তাদেরকে বলেছি, আমি টাউট না। আমি বাবার মামলার জন্যই কোর্টে এসেছি। তারা আমার কোনো কথা শোনেনি। আমাকে ধরে নিয়ে একটি রুমে আটকে রাখা হয় এবং শারীরিকভাবে নির্যাতন করে। বুকে টাউট লিখে সুপ্রিম কোর্ট ঘোরানো হয়।
আদুরী আরো বলেন, ওই সময়ে ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলাম। তারা আমার মোবাইল ফোন নিয়ে যায়। এরপর আমাকে শাহবাগ থানায় তুলে দেয়। মামলা করে ৪১৯ ধারায়।
ওই নারী আরো বলেন, মামলায় ২১ দিন জেল খেটে গত ৪ জুন তিনি বের হয়েছেন। এবং জেলে থাকায় অবস্থায় তার গর্ভের সন্তানও নষ্ট হয়ে গেছে।
বিষয়টি সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকনকে লিখিতভাবে জানালে তিনি বিষয়টি দেখবেন বলে আশ্বস্ত করেছেন বলে জানান আদুরী।
লিখিত বক্তব্যে আদুরী বলেন, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি টাউট ও দালালমুক্ত হোক, সেটা আমিও চাই। তাই বলে টাউট মুক্তের নামে আমার মতো একজন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামী পরিবারের সন্তানের সঙ্গে যেটা করা হয়েছে সেটা শুধু অনাকাঙ্ক্ষিত নয়, অমানবিক। যা সর্বোচ্চ আদালতের আইনজীবীদের কাছে কোনোভাবেই কাম্য নয়।
উল্লেখ্য, বার কাউন্সিলের সনদ নেই এমন ব্যক্তিরাও বিভিন্ন মামলা-মোকদ্দমা নিয়ে আদালতপাড়ায় আসেন, এমনকি মামলার শুনানির জন্য কোর্টে যান। এসব ব্যক্তিকে টাউট-দালাল অভিহিত করে তাদেরকে প্রতিহতের দাবি জানিয়ে আসছিলেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবীরা। সেই দাবির মুখে টাউট-দালাল উচ্ছেদে নামে আইনজীবীরা।
এ অভিযানে ২২ জন টাউট ও দালাল শনাক্ত করেন তারা। তাদের সুপ্রিম কোর্টে অবাঞ্ছিত করার পাশাপাশি তাদের বিরুদ্ধে মামলা করে থানায় সোপর্দ করা হয়। সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতিতে টাউট-দালাল উচ্ছেদে বর্তমানে একটি কমিটি কাজ করছে।

- Advertisement -

Latest news

হতাশ হয়ে পাকিস্তানে ফেরত যাচ্ছেন নাগরিকত্বের আশায় ভারতে আসা হিন্দু ও শিখরা!

আশাহত হয়ে পাকিস্তান ফিরে যাচ্ছেন মোদি সরকারের আমলে ভারতীয় নাগরিকত্ব পাওয়ার আশায় পাকিস্তান থেকে আসা হিন্দু ও শিখ শরণার্থীরা। করোনার কারণে আর্থিক ক্ষয়ক্ষতি ও...
- Advertisement -

যে গাছগুলোতে রয়েছে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা

যেসব গাছের এক বা একাধিক অংশ প্রাণীদের ক্ষেত্রে দরকারি ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয় তাকে ঔষধি গাছ বলে। গাছ যদি হয় বিভিন্ন রোগের ওষুধ, তখন...

হাজার কোটি টাকা দিলেও আর হিজাব ছাড়ব না : হালিমা ইডেন

ধর্মীয় বিশ্বাসের সাথে আপস করার জন্য চাপ অনুভব করার প্রেক্ষাপটে মুসলিম মডেল হালিমা ইডেন ফ্যাশন শো থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন। বুধবার ২৩ বছর...

ধর্ষকদের শাস্তি পুরুষাঙ্গ অকেজো, ইমরান খানের অনুমোদন!

ধর্ষণের শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ড এবং রাসায়ানিক প্রয়োগের মাধ্যমে ধর্ষকের পুরুষাঙ্গ অকেজো (খোজাকরণ) করে দেয়ার বিধান রেখে দুটি অধ্যাদেশ অনুমোদন দিয়েছে পাকিস্তানে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিপরিষদ। মঙ্গলবার...

Related news

হতাশ হয়ে পাকিস্তানে ফেরত যাচ্ছেন নাগরিকত্বের আশায় ভারতে আসা হিন্দু ও শিখরা!

আশাহত হয়ে পাকিস্তান ফিরে যাচ্ছেন মোদি সরকারের আমলে ভারতীয় নাগরিকত্ব পাওয়ার আশায় পাকিস্তান থেকে আসা হিন্দু ও শিখ শরণার্থীরা। করোনার কারণে আর্থিক ক্ষয়ক্ষতি ও...

যে গাছগুলোতে রয়েছে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা

যেসব গাছের এক বা একাধিক অংশ প্রাণীদের ক্ষেত্রে দরকারি ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয় তাকে ঔষধি গাছ বলে। গাছ যদি হয় বিভিন্ন রোগের ওষুধ, তখন...

হাজার কোটি টাকা দিলেও আর হিজাব ছাড়ব না : হালিমা ইডেন

ধর্মীয় বিশ্বাসের সাথে আপস করার জন্য চাপ অনুভব করার প্রেক্ষাপটে মুসলিম মডেল হালিমা ইডেন ফ্যাশন শো থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন। বুধবার ২৩ বছর...

ধর্ষকদের শাস্তি পুরুষাঙ্গ অকেজো, ইমরান খানের অনুমোদন!

ধর্ষণের শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ড এবং রাসায়ানিক প্রয়োগের মাধ্যমে ধর্ষকের পুরুষাঙ্গ অকেজো (খোজাকরণ) করে দেয়ার বিধান রেখে দুটি অধ্যাদেশ অনুমোদন দিয়েছে পাকিস্তানে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিপরিষদ। মঙ্গলবার...
- Advertisement -