14 C
Dhaka
Saturday, January 23, 2021

পরনিন্দা,তুহমত জঘন্যতম অপরাধ: মাসুম আল মাহদী

- Advertisement -
- Advertisement -

দোষে-গুণে মানুষ। মানবজীবনের ইহকালীন ও পরকালীন সফলতার জন্য প্রয়োজন দোষ বা মন্দ গুণাবলি বর্জন ও ভালো গুণাবলি অর্জন।
তবে কারো বিষয়ে কথা বলার ক্ষেত্রে সবসময় তার ভালো গুণাবলিগুলো খেয়াল করা উচিত।পরনিন্দা,তুহমত থেকে বেঁচে থাকা একান্ত প্রয়োজন।
কারন গীবত বা পরনিন্দা করা ইসলামের দৃষ্টিতে জঘন্য অপরাধ। কোনো ব্যক্তির অনুপস্থিতিতে তার দোষ-ত্রুটি আলোচনা করার নামই গীবত। চাই তা কথা, ইশারা-ইঙ্গিত বা লেখনীর মাধ্যমে হোক। গীবত আরবি শব্দ, বাংলায় বলা হয় পরনিন্দা।

মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন কুরআন কারিমে এরশাদ করেন ‘হে মুমিনগণ! তোমরা অনেক ধারণা থেকে বেঁচে থাকো। নিশ্চয়ই কতক ধারণা গোনাহ। কারো গোপনীয় বিষয় সন্ধান করো না। তোমাদের কেউ যেন কারো পশ্চাতে নিন্দা না করে। তোমাদের কেউ কি স্বীয় মৃত ভাইয়ের গোশত ভক্ষণ করতে পছন্দ করবে? বস্তুত তোমরা তো একে ঘৃণাই করো’ (সূরা হুজুরাত : ১২)।

পবিত্র কুরআনে আরো এরশাদ হয়েছে-‘প্রত্যেক পশ্চাতে ও সম্মুখে পরনিন্দাকারীর জন্য দুর্ভোগ’ (সূরা হুমাজাহ : ০১)। মহান আল্লাহ তায়ালা আরো এরশাদ করেন,হে মুমিনগণ! তোমরা একে অপরের প্রতি দোষারোপ করো না’ (সূরা হুজরাত : ১১)।

গীবত কী? এ সম্পর্কে হজরত আবু হুরায়রা রাঃ থেকে বর্ণিত, একদা রাসূল সাঃ সাহাবায়ে কেরামগণকে জিজ্ঞাসা করলেন, তোমরা কি বলতে পারো, গীবত কাকে বলে? সাহাবিগণ আরজ করলেন, আল্লাহ ও তাঁর রাসূল সাঃই ভালো জানেন। তখন রাসূলুল্লাহ সাঃ এরশাদ করলেন, গীবত হলো কোনো ব্যক্তির অনুপস্থিতিতে তার এমন দোষ-ত্রুটি বর্ণনা করা, যা শুনলে সে অসন্তুষ্ট হয় এবং অন্তরে আঘাত পায়, তাকেই গীবত বলে। অর্থাৎ কারো অগোচরে তার এমন দোষ বলা, যা বাস্তবেই তার মধ্যে আছে, তাই গীবত বা পরনিন্দা। আর যদি তার মধ্যে সেই দোষ না থাকে, তবে তা অপবাদ (তুহমত) হবে। যা গীবত থেকেও মারাত্মক গুনাহ (মুসলিম : ২৫৮৯)।

হজরত আবু সাঈদ খুদরী রাঃ থেকে বর্ণিত রাসূল সাঃ এরশাদ করেন, ‘গীবত ব্যভিচারের চেয়েও জঘন্যতম গোনাহ। তিনি রাসূল সাঃ-এর কাছে জানতে চাইলেন এটা কিরূপে? তিনি বললেন, এক ব্যক্তি ব্যভিচার করার পর তাওবাহ করলে তার গোনাহ মাফ হয়ে যায়। কিন্তু যে গীবত করে তার গোনাহ প্রতিপক্ষের মাফ না করা পর্যন্ত মাফ হয় না’ (তিরমিজি : ২৪১২)।

হজরত অবু হুরায়রা রা: থেকে বর্ণিত রাসূল সা: এরশাদ করেন, তোমরা একে অপরের পরনিন্দা করো না। আর পরনিন্দা হলো অপর ভাইয়ের এমন দোষ বর্ণনা করা যা তার অপছন্দ। যে ব্যক্তি অপর মুসলমানদের দোষ অনুসন্ধান করে আল্লাহ তার দোষ অনুসন্ধান করেন। আল্লাহ যার দোষ অনুসন্ধান করেন তাকে লাঞ্ছিত ও অপমানজনক শাস্তি দেবেন (তিরমিজি : ২৬৩৯)।

রাসূল সা: এরশাদ করেন, ‘তোমরা গীবত বা পরনিন্দা করা থেকে বেঁচে থাকবে। কারণ তাতে তিনটি ক্ষতি রয়েছে। প্রথমত, গীবতকারীর দোয়া কবুল হয় না। দ্বিতীয়ত, গীবতকারীর কোনো নেক আমল কবুল হয় না এবং তৃতীয়ত আমলনামায় তার পাপ বৃদ্ধি হয়ে থাকে (বুখারি : ২৮৩৭)।

হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস রাঃ থেকে বর্ণিত, রাসূল সাঃ বলেন, ‘যখন তুমি কারো দোষ বর্ণনা করতে ইচ্ছে করো, তখন নিজের দোষের কথা স্মরণ করো যাতে গীবতের কারণে জাহান্নামে যাওয়া থেকে বাঁচতে পার। যদি নিজের দোষ না দেখে শুধু অপরের দোষই বর্ণনা করতে থাক তাহলে পরকালে আল্লাহও তোমার দোষ প্রকাশ করবেন’ (ইবনে মাজাহ : ২৫৪৬)।

রাসূল সাঃ এরশাদ করেন, ‘তোমরা অন্যের দোষ অন্বেষণ করবে না, গুপ্তচরবৃত্তি করবে না, পরস্পর কলহ করবে না, হিংসা-বিদ্বেষ করবে না’ (মুসলিম : ১৯০৩)।

তবে কোনো ব্যক্তির অনিষ্ট থেকে ব্যক্তি, দেশ কিংবা জাতিকে বাঁচাতে গীবত করা অপরাধ নয়। ব্যক্তি এবং জাতিকে সচেতন করার উদ্দেশে তাদের দোষগুলো মানুষকে জানিয়ে দেয়া আবশ্যক। এ ক্ষেত্রে গীবত করা জায়েজ। পরিশেষে বলা যায় পরনিন্দা মানুষের ঈমান-আমলকে বিনষ্ট করে দেয়। মহান আল্লাহ তায়ালা আমাদের এসব নিন্দনীয় কাজ থেকে বেঁচে থাকার তাওফিক দান করুন।

লেখকঃ সম্পাদক, “জনকল্যাণ ২৪”।

- Advertisement -

Latest news

হতাশ হয়ে পাকিস্তানে ফেরত যাচ্ছেন নাগরিকত্বের আশায় ভারতে আসা হিন্দু ও শিখরা!

আশাহত হয়ে পাকিস্তান ফিরে যাচ্ছেন মোদি সরকারের আমলে ভারতীয় নাগরিকত্ব পাওয়ার আশায় পাকিস্তান থেকে আসা হিন্দু ও শিখ শরণার্থীরা। করোনার কারণে আর্থিক ক্ষয়ক্ষতি ও...
- Advertisement -

যে গাছগুলোতে রয়েছে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা

যেসব গাছের এক বা একাধিক অংশ প্রাণীদের ক্ষেত্রে দরকারি ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয় তাকে ঔষধি গাছ বলে। গাছ যদি হয় বিভিন্ন রোগের ওষুধ, তখন...

হাজার কোটি টাকা দিলেও আর হিজাব ছাড়ব না : হালিমা ইডেন

ধর্মীয় বিশ্বাসের সাথে আপস করার জন্য চাপ অনুভব করার প্রেক্ষাপটে মুসলিম মডেল হালিমা ইডেন ফ্যাশন শো থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন। বুধবার ২৩ বছর...

ধর্ষকদের শাস্তি পুরুষাঙ্গ অকেজো, ইমরান খানের অনুমোদন!

ধর্ষণের শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ড এবং রাসায়ানিক প্রয়োগের মাধ্যমে ধর্ষকের পুরুষাঙ্গ অকেজো (খোজাকরণ) করে দেয়ার বিধান রেখে দুটি অধ্যাদেশ অনুমোদন দিয়েছে পাকিস্তানে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিপরিষদ। মঙ্গলবার...

Related news

হতাশ হয়ে পাকিস্তানে ফেরত যাচ্ছেন নাগরিকত্বের আশায় ভারতে আসা হিন্দু ও শিখরা!

আশাহত হয়ে পাকিস্তান ফিরে যাচ্ছেন মোদি সরকারের আমলে ভারতীয় নাগরিকত্ব পাওয়ার আশায় পাকিস্তান থেকে আসা হিন্দু ও শিখ শরণার্থীরা। করোনার কারণে আর্থিক ক্ষয়ক্ষতি ও...

যে গাছগুলোতে রয়েছে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা

যেসব গাছের এক বা একাধিক অংশ প্রাণীদের ক্ষেত্রে দরকারি ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয় তাকে ঔষধি গাছ বলে। গাছ যদি হয় বিভিন্ন রোগের ওষুধ, তখন...

হাজার কোটি টাকা দিলেও আর হিজাব ছাড়ব না : হালিমা ইডেন

ধর্মীয় বিশ্বাসের সাথে আপস করার জন্য চাপ অনুভব করার প্রেক্ষাপটে মুসলিম মডেল হালিমা ইডেন ফ্যাশন শো থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন। বুধবার ২৩ বছর...

ধর্ষকদের শাস্তি পুরুষাঙ্গ অকেজো, ইমরান খানের অনুমোদন!

ধর্ষণের শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ড এবং রাসায়ানিক প্রয়োগের মাধ্যমে ধর্ষকের পুরুষাঙ্গ অকেজো (খোজাকরণ) করে দেয়ার বিধান রেখে দুটি অধ্যাদেশ অনুমোদন দিয়েছে পাকিস্তানে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিপরিষদ। মঙ্গলবার...
- Advertisement -